dannews24.com | logo

১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গাবতলীর ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা আগামী বুধবার অনেক বাড়ীতে স্বজনদের আপ্যায়নে মুড়ি ভাঁজার ধুম

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০২১, ১৯:২৩

গাবতলীর ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা আগামী বুধবার অনেক বাড়ীতে স্বজনদের আপ্যায়নে মুড়ি ভাঁজার ধুম

মুহাম্মাদ আবু মুসা ঃ ঢাকঢোল পিটিয়ে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য আগামী ১০ফের্রুয়ারী বুধবার পূর্ব বগুড়া তথা গাবতলীর ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে মেলা আয়োজকরা অত্যান্ত ব্যস্ত হয়ে উঠেছে। স্বজনদের আপ্যায়ন করতে মেলার আশপাশের গ্রামের অনেক বাড়ীতে ধুম পড়ে গেছে মুড়ি ভাঁজার। উপজেলার মহিষাবান ইউনিয়নের অর্ন্তগত গোলাবাড়ী বন্দর সংলগ্ন প্রায় দেড়শত বছর পূর্বে থেকে স্থানীয় সন্ন্যাসী পূজা উপলক্ষে গাড়ীদহ নদী ঘেঁষে সম্পূর্ন ব্যক্তি মালিকানা জমিতে একদিনের জন্য মেলাটি বসে।
দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার মানুষ মেলায় এসে ক্রয়-বিক্রয় করে। মেলা উপলক্ষে আশপাশের গ্রামের প্রতিটি বাড়ীতে আত্মীয় স্বজন এসে সমবেত হয়। ঈদ বা কোন উৎসবে জামাই-মেয়েসহ অন্যান্য আত্মীয় স্বজনদের দাওয়াত না দিলেও তেমন কোন সমস্যা নেই। তবে মেলা উপলক্ষে দাওয়াত দিতেই হবে, যা রেওয়াজে পরিনীত হয়েছে। মেলাটি একদিনের জন্য হলেও ওই এলাকায় মেলার আমেজ থাকে সপ্তাহ ব্যাপী। মেলা উপলক্ষে খরচার জন্য নিম্ম ও মধ্যবিত্ত পরিবার বছরের শুরু থেকে মাটির ব্যাংক অথবা বাঁশের খুঁটির মধ্য সুজুগ মতে অল্প অল্প করে টাকা-পয়সা জমা রেখে মেলার সময় বের করে। এই মেলাকে ঘিরে উপজেলার দুর্গাহাটা, সুবোধ বাজার, দাড়াইল বাজারসহ আরো কয়েকটিস্থানে অবৈধভাবে মেলা বসানো হয়। মেলায় প্রসিদ্ধ হলো বড় বড় মাছ, হরেক রকম মিষ্টি, কাঠ বা ষ্ঠীলের র্ফানিচার, বড়ই (কুল), কৃষি সামগ্রীসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ও খাদ্য দ্রব্য হাট-বাজারের ন্যায় কেনা-বেচা করা হয়। এ ছাড়া বিনোদনমূলক সার্কাস, নৌকা, মাইক্রো-কার খেলা, যাদু, ও নাগোরদোলার আয়োজন করা হয়।
মেলাটি জন্মের পর থেকে মহিষাবান গ্রামের মন্ডল পরিবার পরিচালনা করে আসছে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মেলার লাইসেন্স দেয়া হয়। যে কারনে মহিষাবান ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আমিনুল ইসলাম মেলাটির নেতৃত্বে রয়েছেন। বাংলার প্রতি বছরের মাঘ মাসের শেষ অথবা ফাল্গুন মাসের প্রথম বুধবার মেলাটি হয়ে থাকে। কিছু সমস্যার কারনে গত ২/৩ বছর হলে মূল জায়গা থেকে একটু দুরে মেলাটি বসানো হয়। মেলাটি আগামী ১০ফের্রুয়ারী বুধবার হলেও ইতিমধ্যে বেশকিছু দোকান ঘর স্থাপন করা হয়েছে। হরেক রকম হাজার হাজার মণ মিষ্টি তৈরী করার প্রস্তুতি চলছে। এ বিষয়ে মহিষাবান ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আমিনুল ইসলাম এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলার প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ রওনক জাহান জানান, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ার লক্ষে প্রশাসনের সার্বিকভাবে সহযোগিতা থাকবে। এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নুরুজ্জামান এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, আয়োজকরা সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে মেলার অনুমতি পেলে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও পোড়াদহ মেলায় আমাদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কঠোর নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে।






অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা। 01711366298/01812550877 mushanews2011@gmail.com

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান। 01796032336

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা। ( বিএ অর্নাস) রাষ্ট্রবিজ্ঞান।