dannews24.com | logo

১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নন্দীগ্রামের এক অসহায় অন্ধ বৃদ্ধা ভিখারীনীর দায়িত্ব নিলেন এম পি আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ০৬, ২০২০, ১৩:০৯

নন্দীগ্রামের এক অসহায় অন্ধ বৃদ্ধা ভিখারীনীর  দায়িত্ব নিলেন এম পি আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল ইউনিয়নের কহুলি দক্ষিণপাড়ার (পুকুর পাড়ের) এক অসহায় অন্ধ বৃদ্ধা ভিখারীনী বেগম (৭০) এর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সমস্ত খাওয়া-দাওয়া ও কাপড়-চোপড় সহ সকল ধরনের দায়িত্ব নিলেন কেন্দ্রীয় জিয়া শিশু কিশোর পরিষদের সহ-সভাপতি, বগুড়া-৪, কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার সংসদ সদস্য ও প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় এর সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব মো. মোশারফ হোসেন।

নন্দীগ্রামের দোহার এর কাছে পাকা রাস্তার পাশে বসে ভিক্ষা করতে দেখেন বয়সের ভারে নুয়ে পড়া ৭০ বছরের এক অন্ধ বদ্ধাকে দেখে এম পি আলহাজ্ব মো. মোশারফ হোসেন সাথে সাথে গাড়ী থামিয়ে নেতাকর্মীদের নিয়ে তার পাশে বসে কথা বললে অন্ধ বদ্ধা বেগম জানান, আমার বাড়ির লোকজন বলতে আপন ভাই মিলন মন্ডল।

তিনিও একজন ভিক্ষুক। আমার ভাই মিলনের মেয়ে আদুরী আমাকে দেখাশোনা করে এবং প্রতিদিন প্রায় কোয়াটার কিলোমিটার দুরে কোলে করে নিয়ে গিয়ে আমাকে পাকা রাস্তার উপর বসে রাখে এবং ভিক্ষা করার পরে আবার নিয়ে আসে। তিনি আরও বলেন, পাঁচ বছর বয়সে টাইফয়েড জ্বরে আমার দুই চোখ অন্ধ হয়ে যায়। অসহায় অন্ধ বৃদ্ধা ভিখারীনী বেগম এর সমস্ত কথা শুনে পরের দিন এম পি আলহাজ্ব মো. মোশারফ হোসেন এর বাড়ীতে ডাকেন অসহায় অন্ধ বৃদ্ধার আত্মীয়-স্বজনকে।

তার আত্মীয়-স্বজনকে এম পি আলহাজ্ব মো. মোশারফ হোসেন বলেন, অসহায় অন্ধ বৃদ্ধা ভিখারীনী বেগম এর সমস্ত খাওয়া-দাওয়া ও কাপড়-চোপড় সহ সকল ধরনের দায়িত্ব নিলাম আজ থেকে আমি। দয়া করে তাহাকে আর রাস্তার ধারে বসাবেন না। আল্লাহ তুমি মহান। আল্লাহ তুমি সবাইকে ভালো রাখো। আল্লাহ যতদিন তুমি আমাকে বেঁচে রাখো ততদিন যেন আমি মানুষের সেবা করতে পারি “আমিন”।






অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা। 01711366298/01812550877 mushanews2011@gmail.com

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান। 01796032336

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা। ( বিএ অর্নাস) রাষ্ট্রবিজ্ঞান।