dannews24.com | logo

৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পলাশবাড়ীতে প্রতিহিংসার বীষ কৃষি জমিতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১, ০৯:৪৩

পলাশবাড়ীতে প্রতিহিংসার বীষ কৃষি জমিতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক

 

শাহারুল ইসলাম, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃগাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে কৃষি জমিতে পানি নিতে বাঁধা দেয়ায় ধান রোপন করতে পারছেনা আঃ রহমান নামের এক কৃষক।

ঘটনাটি ঘটেছে, পলাশবাড়ী পৌর এলাকার হিজলগাড়ী গ্রামে।

সরেজমিনে জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত বিরাজ উদ্দিনের ছেলে আঃ রহমান একই গ্রামের লাল মিয়া মন্ডলের ছেলে আবু হোসেনের নিকট থেকে কয়েক বছর আগে ৪২ শতাংশ জমি বন্ধক নিয়ে চাষাবাদ করে আসছিল। কিছুদিন আগে জমির মালিক আবু হোসেনের সাথে পার্শ্ববর্তী জমির মালিক ওই গ্রামের মৃত বাবু মন্ডলের ছেলে আশাদুলের সাথে ব্যক্তিগত বিষয়াদি নিয়ে মনোমালিন্য হয়। তারই প্রেক্ষিতে আশাদুল মন্ডল তার জমির উপর দিয়ে যাতে আঃ রহমানের বন্ধক নেয়া জমিতে পানি যেতে না পারে সেজন্য সেচ মালিক ওই গ্রামের মৃত নয়া মিয়া মন্ডলের ছেলে ফজলু মিয়া নিষেধ করে। নিষেধ পেয়ে সেচ পাম্প মালিক ফজলু মিয়া উক্ত জমিতে পানি দেয়া থেকে বিরত থাকেন। যার কারনে উক্ত জমিতে ইরি ধানের চাষ করতে পারেনি কৃষক আঃ রহমান।

জানতে চাইলে জমির মালিক আবু হোসেন জানান, আশাদুল কোন কারন ছাড়াই আঃ রহমানের বন্ধক নেয়া জমিতে পানি প্রদানে সেচ পাম্প মালিককে নিষেধ করেছে।

সেচ পাম্প মালিক ফজলু মিয়ার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি এ বিষয়ে কারও সাথে কথা বলবেন না বলে জানান।
এ বিষয়ে আশাদুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি আমার জমির উপর দিয়ে আঃ রহমানের জমিতে পানি যেতে দিব না।

কৃষক আঃ রহমান জমিতে ধান রোপন করতে পারছেন না এতে আঃ রহমান ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন এমন প্রশ্ন করলে তিনি জানান তাতে আমার কিছু যায় আসে না, আমি পানি যাওয়া বন্ধ করেছি তারা তো আমার কাছে কোনদিন এসে অনুরোধ পর্যন্ত করেনি।

কৃষক আঃ রহমান কান্না জড়িত কন্ঠে জানান,উক্ত জমিতে চাষাবাদ করতে না পারলে পরিবার নিয়ে আমাকে না খেয়ে থাকতে হবে।






অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা। 01711366298/01812550877 mushanews2011@gmail.com

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান। 01796032336

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা। ( বিএ অর্নাস) রাষ্ট্রবিজ্ঞান।