dannews24.com | logo

১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাণীনগরে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুরের বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগে প্রতিবাদ সভা

প্রকাশিত : জুন ১১, ২০২১, ১৮:১০

রাণীনগরে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুরের বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগে প্রতিবাদ সভা

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার পারইল-বড়গাছা ইউনিয়নের ভূমি অফিস ভান্ডারগ্রাম এর উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ, দূর্নীতি ও হয়রানী সহ নানা অনিয়মের অভিযোগে প্রতিবাদ সভা করেছে ভ’ক্তভোগী এলাকাবাসী।

পারইল-বড়গাছা ইউনিয়নের ভূমি অফিস ভান্ডারগ্রাম এর সামনে বাজারে বুধবার দুপুরে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, গবিন্দগঞ্জ সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আফজাল হোসেন, কামতা এস এন উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুল মান্নান, খাস কামতা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বীরমুক্তিযোদ্ধা এমএ মজিদ, বগারবাড়ী বাজারের বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী রানা প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভান্ডারগ্রাম এর উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বিভিন্ন কৌশলে সেবা প্রার্থীদের কাছ থেকে ঘুষ দাবি করেন। এতে জমির মালিকরা খাজনা খারিজ ও অন্যান্য কাজে প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছে। বেশী টাকা নিয়ে খাজনা পরিশোধিত রশিদে কম টাকা লিখে দেওয়া সহ নানাভাবে কৌশল অবলম্বন করে হয়রানি করছে । তার বেপরোয়া অর্থ দাবিতে সাধারণ মানুষ ফুঁসে উঠেছে ।

বক্তারা আরো বলেন, মোস্তাফিজুর রহমান এখানে যোগদানের পর থেকে অফিসে আসা সেবা প্রার্থীদের সাথে দুর্ব্যবহার ও অসৌজন্য মুলক ব্যবহার করে থাকে। ইচ্ছা মতো লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে ও হয়রানি করছে। জমির খাজনা দিতে গেলে পরিশোধিত রশিদে লিখে দিবে কম টাকা আর নানা ভাবে বুঝিয়ে অতিরিক্ত টাকা দাবি করে। কিন্তু তার দাবি না মানলে বিভিন্ন ভাবে সেবা প্রার্থীদের হয়রানি করে।

দেউলা মানিকহার গ্রামের ক্ষিতিশ চন্দ্র মন্ডলের ছেলে অসিত মন্ডল বলেন ইউনিয়ন উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান আমার জমির খাজনা বাবদ ৩হাজার ৫শ টাকা নিয়েছে কিন্তু খাজনা পরিশোধিত রশিদে ৩শ ৩৫ টাকা লিখে দিয়েছে।

ইউনিয়ন উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগগুলো অস্বীকার করে জানান কয়েকদিন আগে অধ্যক্ষ আফজাল হোসেন অফিসে এসেছিলেন অফিস শেষ সময়ে। কিন্তু অফিস শেষ সময় হওয়াই এবং তার সম্পন্ন কাগজ না থাকায় আমি তার কাজ করে দিতে পারিনাই এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উনি এলাকা বাসীকে নিয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক এগুলো করাচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন এবিষয়ে কেউ আমাকে কিছু জানায়নি আপনার মাধ্যমে জানলাম। এঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহকরা হবে। এছাড়াও সরকারী নিয়মের বাহিরে কাউকে কোন অতিরিক্ত টাকা না দিতে এলাকার সকল সেবা গ্রহিতাদের আহবান জানিয়েছেন তিনি।






অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা। 01711366298/01812550877 mushanews2011@gmail.com

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান। 01796032336

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা। ( বিএ অর্নাস) রাষ্ট্রবিজ্ঞান।