dannews24.com | logo

১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

নওগাঁর এক বছরেও মেরামত হয়নি ভেঙ্গে যাওয়া নান্দাই বাড়ি –কৃঞ্পুর বেঁড়ি বাঁধ

প্রকাশিত : জুলাই ০৫, ২০২০, ১৩:৫১

নওগাঁর এক বছরেও মেরামত হয়নি ভেঙ্গে যাওয়া নান্দাই বাড়ি –কৃঞ্পুর বেঁড়ি বাঁধ

কামাল উদ্দিন টগর,নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ-নওগাঁর এক বছরেও মেরামত হয়নি ভেঙ্গে যাওয়া নান্দাই বাড়ি –কৃঞ্পুর বেঁড়ি বাঁধ ,রানীনগরের নদীর পানি বাড়ার সাথে বাড়ছে এলাকাবাসীর আতংক।   গতবছরের প্রবল বন্যায় নওগাঁর রানীনগরের ছোট যমুনা নদীর নান্দাইবাড়ি-কৃঞ্ষপুর বেরিবাঁধ ভেঙ্গে গেলেও এক বছরে মেরামত করেনি কেউ।এছাড়া নদীর পানি বাড়ার সাথে সাথে স্থানীয়দের মধ্যে বাড়ছে আতংক। ফলে যে কোন মহূর্তে প্রবল বন্যায় ওই এলাকা প্লাবিতহয়ে প্রতি বছরের মতো বসতবাড়ি ও ফসলহানিসহ বড় ধরনের ক্ষতির আশংকা করছেন এলাকাবাসী। এদিকে নদীর পানি ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাওয়ায় ভেঙ্গে বাঁধ দিয়ে পানি ঢুকেইতি মধ্যেই নান্দাই বাড়ি এলাকার কয়েকটি পুকুর ডুবে প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকার মাছ ভেসে গেছে। জানা গেছে, নওগাঁর ছোট যমুনা নদী জেলার রানী নগর উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে আত্রাই নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। প্রায় আশি দশকে রানীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়ন পরিষদের তৎকালীন সময়ের চেয়ারম্যান আহাদ আলী প্রামানিক খাদ্যের বিনিময়ে কর্মসূচীর আওতায় নান্দাইবাড়ি এলাকায় প্রায় সাত কিলোমিটার রাস্তা কাম বেঁরিবাঁধ নির্মাণ করেন। এর পর থেকে প্রায় চল্লিশ বছর ধরে বাঁধটি সংস্কার করা হয়নি।ফলে তৎকালীন সময়ে নির্মিত বাঁধের দুই পাশের মাটি ভেঙ্গে বেঁড়িবাঁধটির বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। প্রতি বছর ওই একই স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে রানী নগর এবং আত্রাই এলাকার হাজার হাজার হেক্টর জমির ধানসহ বিভিন্ন ফসল ও চাষকৃত মাছ ভেসে যায়। এ ছাড়া শত শত বসতবাড়ি ভেঙ্গে পড়ে।ফলে কোটি কোটি টাকার ক্ষতির কবলে পরে এই দুই উপজেলার বাসিন্দারা।গত দুই হাজার আঠারো সালে বন্যায় নান্দাইবাড়ি-কৃষ্ঞপুর বেঁরিবাঁধ ভেঙ্গে গেলে নওগাঁ- আত্রাই পাকা সড়কেররানীনগর সীমানার মিরাপুর,ঘোষগ্রাম,কৃষ্ঞপুরসহ প্রায় পাঁচ জায়গায় বেঙ্গে যায়।ওই বছরেই বন্যায় রানী নগর উপজেলার প্রায় পনেরোহাজার হেক্টর জমির ধান বন্যার পানিতে তরিয়ে যায়। প্রতি বছর একই স্থানে ধারাবাহিক ভাবে বাঁধ ভেঙ্গে কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হলেও নতুন করে বাঁধ নির্মানে কিম্বা সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেয়নি কেউ।গতবছর একই স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় সাড়ে আট হাজার হেক্টর জমির সফল পানিতে ডুবে নষ্ট হয়। প্রতি বছর ভেঙ্গে যাওয়া অংশ মেরামত করলেও গত বছরে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধটি এখনো মেরামত করা হয়নি।বর্তমানে ভারী বৃষ্টিএবংউজান থেকে আসা ঢলের পানিতে নদীর পানি দিন দিন বৃদ্ধিপাচ্ছে। যে কোন মহূর্তে প্রবল বন্যায় ওই এলাকার বসতবাড়ি প্লাবিত হয়ে প্রতি বছরের মতো বড় ধরনের ক্ষতির অশংকা আতংকিতহয়ে পড়েছেন স্থানীয়রা। নান্দইবাড়ি, মালঞ্চিএলাকার মোয়াজ্জেম হোসেন, আবু বক্কর, মোতালেব হোসেন, আজিজুর রহমান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতিবছর বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় পঞ্চাশটি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়েপরে। কোটি কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। আবার কিছুটা হলেও বাঁধ সংস্কার করে বসতি ও ফসল রক্ষার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু গত বছর বাঁধ ভেঙ্গে গেলেও এখন পযন্ত কেই মেরামত করেনি। ফলে চলতি বছরে বন্যায়ফসলহানী ও বসতির ব্যাপক ক্ষতি হবে বলে জানান তারা, আবুবক্কর জানান, নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গতসপ্তাহে ভাঙ্গা অংশ দিয়ে পানি ঢুকে ইতি মধ্যেআমার তিটি পুকুর সহ নান্দাইবাড়িরপ্রায় আটটি পুকুরের প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকার মাছ ভেসে গেছে। ফসল ও বসতি রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে বাঁধ মেরামত করার দাবী জানান।রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল মামুন বলেন, বুধবার বিকালে বাঁধেঁর ভেঙ্গে যাওয়া অংশ পরিদর্শন করেছি। এব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে যে কোন মুল্যেভাঙ্গা অংশ মেরামত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে।আশা করছি খুব শীঘ্রই বাঁধটি মেরামত করা হবে। এব্যাপারে নওগাঁ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান খান বলেন,নান্দাইবাড়ি-কৃষ্ঞপুর বেঁরিবাঁধটি সংস্কারের জন্য উনচল্লিশ লক্ষ টাকা ব্যয় ধরে টেন্ডার দেয়া হয়েছে। গত জুন মাসের21তারিখ থেকে কাজ শুরু করতে পারেনি। তবে পানি কমে যাওয়ারসাথে সাথে বাঁধটি সংস্কার করা হবে।

Facebook Comments

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।