dannews24.com | logo

১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১লা নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

রাজশাহী সংবাদ প্রকাশের পর — ইন্সপেক্টর হাবিব, তার বিরুদ্ধে ডজন খানেক অভিযোগ

প্রকাশিত : আগস্ট ১৮, ২০২০, ১৩:৪৭

রাজশাহী সংবাদ প্রকাশের পর — ইন্সপেক্টর হাবিব, তার বিরুদ্ধে ডজন খানেক অভিযোগ

Spread the love

সানোয়ার আরিফ: কে এই ইন্সপেক্টর হাবিব, যে বিএনপি পন্থি এজেন্তা বাস্তবায়নে মরিয়া হয়ে সরকারকে সমালোচিত করছে । পশ্চিম রেলের আর এন বি সদর শাখার রাজশাহী রেল স্টেশন চৌকির পরিদর্শক আহসান হাবিব এখন ঘুষসহ আটক বানিজ্যের মুলহোতা। জড়িয়ে গেছেন টিকিট কালোবাজারিসহ নানা অপকর্মে। ২০০৪ সালে ব্যারিস্টার আমিনুলের (সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী) হাত ধরে আরএনবির এএসআই পদে ভর্তি হন হাবিব। বাবা এনামুল হক তখন গোদাগাড়ী উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক। বাবার বদৌলতে নিজ জেলার আমনুরায় যোগদান, এরপর শুরু হয়, মাদক চোরাকারবারি সাথে ট্রেনে মাদক পাচার, ৭ বছরে সেখান থেকে বনে যান কোটিপতি। পদোন্নতি নিয়ে এস আই, ১৫ লাখ টাকার বিনিময়ে পরিদর্শক । এরপর নগরীর নিমতলা মোড়ে দেড় কোটি টাকা মূল্যে বাড়ি করে মাত্র ১৬ বছর চাকুরী জীবনে । পরিদর্শক হয়ে পদোন্নতি পেয়ে যোগদান করেন রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে । এরপর আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেন তিনি । তেল চুরি থেকে ফুটপাতের দোকানীদের নিকট মাসিক মাসোয়ারা নেওয়াসহ নানা অনিয়মে প্রত্যাক্ষ পরোক্ষভাবে জড়িয়ে যান তিনি । অধিনস্থদের কাছে থেকেও মাসিক মাসোয়ারা নিয়ে, মাসে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন এই পরিদর্শক । ভুক্তভোগী ও প্রত্যাক্ষদোষীর বরাতে জানা যায়, রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের কেচি গেইটে ডিউটি দেওয়া হয় দুই সিফটে ১০ জনকে । প্রতিজনকে মাসে দিতে হয়ে ১ হাজার করে ১০ জনে ১০ হাজার । স্টেশনের প্রবেশ মুখে কাচের গেটে ডিউটি দেওয়া হয় দুই সিফটে ৬ জন করে সর্বমোট ১২ জনকে । এই ১২ জন প্রতিমাসে দেন ৬ শত করে মোট ৭ হাজার ২ শত টাকা । অস্ত্রাগারে ডিউটি করেন ৪ জন, যারা দেন জনপ্রতি ৭০০ শত টাকা । এরপর আছে ফকো ছুটির নামে দিন প্রতি ১০০ শত টাকার ছুটি খেটে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করা । তেলচুরি ও আটক বানিজ্যের সংবাদ প্রকাশ হলেও অজ্ঞাত কারণেই চুপচাপ আরএনবির উচ্চ পদস্তরা। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি রাজশাহী রেল স্টেশনে তেল চুরির ঘটনায় মুল আসামীদের ছাড় দেওয়া হয় মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে। সেই ঘটনায় রাঘব বোয়াল বেড়িয়ে গেলেও, ভাগ্য বদলায়নি চুনাপুঁটিদের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেল কর্মচারী জানান, তেল চুরির মুল হোতাই হচ্ছেন পরিদর্শক হাবিব, অথচ মাসোহারা না পেলেই চালায় অভিযান। এদিকে চুনাপুটি ধরে রাঘব বোয়ালদের ভয়ভিত্তি দিয়ে মোটা অংকের টাকা নিচ্ছেন তিনি । এ বিষয়ে কথা বললে পরিদর্শক হাবিব সব অস্বীকার করেন, এমনকি কোন পক্ষ তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলেও জানান তিনি ।

Facebook Comments

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।