dannews24.com | logo

৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৩শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

একজন প্রকৃত মানবিক পুলিশ কর্মকর্তার গল্প

প্রকাশিত : আগস্ট ২৭, ২০২০, ০৯:১৭

একজন প্রকৃত মানবিক পুলিশ কর্মকর্তার গল্প

বগুড়া অফিস ডেক্স: মিঠু হোসেন নামের ছেলেটি এবার এসএসসি পাশ করেছে। বাড়ি নওগাঁর পাহাড়পুরে। মানসিক রুগী বড় ভাই আলম হোসেনকে নিয়ে বগুড়ায় এসেছিল ডাক্তার দেখাতে। সাথে এসেছিলেন গ্রামের এক মামা। বুধবার ডাক্তার দেখাতে গিয়ে পরিক্ষা নিরিক্ষার রিপোর্ট হাতে পেতে রাত ১১ টা বেজে যায়।ততক্ষনে ডাক্তার চেম্বার থেকে উঠে গেছেন। ডাক্তার চেম্বারে বসবেন পরদিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়। ডাক্তার চেম্বারে না বসা পর্যন্ত প্রেসক্রিপশন পাবে না।বিপাকে পড়ে যান গ্রাম থেকে আসা দিন মজুর পরিবারের তিন সদস্য। তিনজন খাওয়ার মত রুটি আর গুড় বাড়ি থেকে নিয়ে আসলেও রাতে বগুড়া শহরে থাকার মত টাকা নেই তাদের হাতে। মানসিক রোগী আলম হোসেনকে তার মামার সাথে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়ে ছোট ভাই মিঠু থেকে যায় বগুড়া শহরে ডাক্তারকে প্রেসক্রিপশন দেখানোর জন্য।
এই প্রথম বগুড়া শহরে আসা মিঠু হোসেন কোথায় যাবে,কোথায় থাকবে ভেবে না পেয়ে ঠনঠনিয়া থেকে রিক্সায় উঠে অজানা গন্তব্যের উদ্দেশ্যে।রিক্সা চালক বিষয়টি বুঝতে পেরে তাকে বগুড়া ডিসি অফিস চত্বরে নামিয়ে দেয়। মিঠু হোসেন ডিসি অফিস চত্বরে বিআরটিএ অফিসের সামনে বট গাছের নীচে ঘুমিয়ে পড়ে। রাতে ডিসি অফিসে চত্বরে হাটতে যান বগুড়া সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা। বট গাছের নীচে ঘুমিয়ে থাকা ছেলেটিকে চোখে পড়ে তার। মিঠু হোসেনের মুখে বিস্তারিত শুনে রাতে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করে দেন শহরের একটি আবাসিক হোটেলে।পরদিন সদর থানায় সকালের নাস্তা এবং দুপুরের খাবার ব্যবস্থা থেকে শুরু করে বাড়ি পৌছানো পর্যন্ত যাবতীয় দায়িত্ব নেন ইন্সপেক্টর রেজা।
তিনি এই মানবিক দায়িত্ব না নিলে রাতে ওই ছেলেটি যেকোন বিপদে পড়ে প্রান হানীও ঘটতে পারতো। বৃহস্পতিবার থানায় গিয়ে দেখা হয় মিঠু হোসেনের সাথে। কথা বলতে গিয়ে আবেগে দুচোখ দিয়ে পানি বের হয় তার। তার ধারনা ছিল পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে হাজতে রাখবে? টাকার জন্য বাড়িতে খবর দিবে? টাকা না দিতে পারলে চালান দিবে? কিন্তু ঘটনা ঘটলো উল্টো? পুলিশ সর্ম্পকে ধারনা পাল্টে যায় মিঠু।ভবিষ্যতে পুলিশে যোগ দিয়ে এমনই মানবিক পুলিশ হতে চায় মিঠু।

Mob: ০১৭১১-৩৬৬২৯৮, ০১৮১২-৫৫০৮৭৭

ই-মেইল mushanews2011@gmail.com




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।