dannews24.com | logo

১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বাঁশের সাঁকো মেরামতে ৯ কোটি টাকা বরাদ্দ

প্রকাশিত : আগস্ট ৩১, ২০২০, ১০:৪৮

বাঁশের সাঁকো মেরামতে ৯ কোটি টাকা বরাদ্দ

Spread the love

ফকীর শাহ  ডেস্ক : বাংলাদেশের ভাগ্য থেকে খসে পড়েছে সোনালী আাঁশ । তার বদলে কপালে জুটেছে হরেক রকম বাঁশ । কংক্রিটের ছাদ ঢালাইয়ে রডের বদলে বাঁশ ব্যবহার করে বাংলাদেশের লুটপাটকে বিশ্বমানে পৌঁছে দেওয়ার পর রেললাইনে বাঁশের ব্যবহার বাংলাদেশের ডিজিটাল উন্নয়নে এক নতুন যুগের সুচনা হয়েছিল। এখন রেললাইনে পাথরের বদলে ইটের খোয়া ব্যবহার করে বাংলাদেশের উন্নয়নকে আরেকবার বিশ্ব দরবারে তুলে ধরা হয়েছে। মাঝখানে পর্দা আর বালিশ দুর্নীতি বাঁশ কালচারকে পেছনে ফেলে দিয়েছিল। তবে এবার পর্দা এবং বালিশ দুর্নীতিকে পেছনে ফেলে আবার লাইম লাইটে উঠে এসেছে সেই বাঁশ। এবার ভাঙ্গা বাঁশের সেতু মেরামতে ৯ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে সোনারবাংলা গড়ার এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত করা হয়েছে।

বাংলাদেশের বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের তুজির বাজার। এই বাজার সংলগ্ন খালের উপর তিন কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে ৮৫ মিটার দৈর্ঘ্যের (২৭৮.৮৮ ফুট) একটি লোহার ব্রিজ সংস্কার করার কথা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি)। গত শুক্রবার দুপুরে সংস্কারের অন্তর্ভুক্ত ওই ব্রিজটি তন্নতন্ন করেও খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে একটি বাঁশের সাঁকো পাওয়া গেছে।

এ নিয়ে কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক মোল্লার (৬৫) সঙ্গে। এখানে ব্রিজ আছে কি-না জানতে চাইলেই তেলে-বেগুনে জ্বলে ওঠেন তিনি।

আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা বলেন, এখানে ব্রিজ পাবেন কই? দুই-তিন কিলোমিটারের মধ্যেও এখানে কোনো ব্রিজ নেই। যুগ যুগ ধরে কত জনপ্রতিনিধির, কত অফিসের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি আমরা। কিন্তু কেউ এখানে একটি ব্রিজ দেয়নি। প্রতিদিন শত শত গ্রামবাসী বাঁশের সাঁকো দিয়েই এই খাল পার হয়। নিজেদের উদ্যোগে এই সাঁকো তৈরি করেছি আমরা। ওই যে বাঁশের সাঁকো দেখছেন, ওটাই এখানকার ব্রিজ।

এখানে একটি ব্রিজ আছে এবং সেই ব্রিজটি সংস্কারে তিন কোটি টাকারও বেশি প্রাক্কলন ব্যয় ধরে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে জেনে স্থানীয় যুবক মো. সজীব (২৫) বলেন, দেশটা চোরে ভরে গেছে। এই সাঁকোটিকেই কাগজে-কলমে ব্রিজ বানিয়ে সংস্কারের নামে কোটি কোটি টাকা লোপাটের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখানকার সংসদ সদস্য ছিলেন। এই লুটপাটের খবর তিনি যদি জানতে পারেন, তাহলে একটা ব্যবস্থা হবেই।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের দক্ষিণাঞ্চলের আয়রন ব্রিজ পুনর্নির্মাণ প্রকল্পের (আইবিআরপি) আওতায় গত ২৮ জুলাই ৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বরগুনার আমতলী ও তালতলী উপজেলায় ৩৩টি লোহার ব্রিজ সংস্কারের জন্য দরপত্র আহ্বান করে জেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর (এলজিইডি)।

দরপত্রে আমতলী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ২৬টি ও তালতলী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সাতটি ব্রিজ সংস্কারের জন্য বরাদ্দ অনুমোদন দেয়া হয়। মোট আটটি প্যাকেজে আহ্বান করা হয় এ দরপত্র। দরপত্র জমাদানের শেষ তারিখ বেধে দেয়া হয়েছে আগামী ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। দরপত্রে পুরোনো ব্রিজের স্থলেই কেবলমাত্র সংস্কারে জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ব্রিজ নেই এমন কোথাও নতুন করে ব্রিজ নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়নি।

গত শুক্রবার আমতলী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে দরপত্রের অন্তর্ভুক্ত বেশ কয়েকটি ব্রিজ সরেজমিনে পরিদর্শনে নামে জাগো নিউজ। অনুসন্ধানে দরপত্রের অন্তর্ভুক্ত হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ তক্তাবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নাশবুনিয়া খালের উপর চার কোটি টাকার অধিক ব্যয়ে সংস্কারের আওতায় আনা দুই নম্বর প্যাকেজে থাকা ১১০ মিটার (৩৬০ ফুট) দৈর্ঘ্যের ব্রিজ তো দূরের কথা খালেরও সন্ধান পাওয়া যায়নি। এমনকি উপজেলার কোথাও এই নামে কোনো খাল নেই বলেও জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন উপজেলার নবীন-প্রবীণ অধিবাসী এবং সাবেক জনপ্রতিনিধিসহ বর্তমান জনপ্রতিনিধিরাও।

এছাড়াও আড়াই কোটি টাকার অধিক ব্যয়ে দরপত্রের তিন নম্বর প্যাকেজের অন্তর্ভুক্ত একই ইউনিয়নের রামজি বাজার সংলগ্ন ৭০ মিটার (২২৯ ফুট) দৈর্ঘ্যের একটি ব্রিজ সংস্কারের কথা বলা হলেও সেখানে স্থানীয়দের উদ্যোগে নির্মিত একটি বাঁশের সাঁকো ছাড়া কোনো ব্রিজ খুঁজে পাওয়া যায়নি।

একই ইউনিয়নে সংস্কারের জন্য দরপত্রের দুই নম্বর প্যাকেজে থাকা দুলপুকুরিয়া এলাকার এলাহিয়া দাখিল মাদরাসা সংলগ্ন ৬০ মিটার (১৯৬ ফুট) দৈর্ঘ্যের ব্রিজ এবং একই প্যাকেজের অন্তর্ভুক্ত দক্ষিণ রাওগা কেরাতুল কোরআন দাখিল মাদরাসা সংলগ্ন ৬০ মিটার (১৯৬ ফুট) দৈর্ঘ্যের ব্রিজটিও খুঁজে পাওয়া যায়নি। এই দুই স্থানেই স্থানীয়দের তৈরি দুটি বাঁশের সাঁকো দেখিয়েছেন স্থানীয়রা। চার কোটি টাকারও অধিক ব্যয়ে এই দুই স্থানে ব্রিজ সংস্কারের কথা।

ব্রিজই নেই অথচ সংস্কারের নামে কোটি কোটি টাকার প্রাক্কলন ব্যয় দেখিয়ে দরপত্র আহ্বান করায় এ প্রকল্পটিকে ভুয়া ও ভৌতিক প্রকল্পের পাশাপাশি লুটপাটের প্রকল্প হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন স্থানীয়রা। এছাড়াও প্রকল্পটি বাস্তবায়ন না করে স্থগিত করার জন্য সংবাদ সম্মেলন এবং মানববন্ধনের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে দৌড়ঝাঁপও শুরু করেছেন ঠিকাদাররা।

স্থানীয় ঠিকাদার মো. মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল বলেন, দরপত্র আহ্বান করার পর আমি কয়েকটি ব্রিজ ঘুরে দেখেছি। প্রকল্পের ৪নং ও ৫নং প্যাকেজের আওতায় গুলিশাখালী ইউনিয়নের ডালাচরার একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাত কিলোমিটার এলাকায় ছয়টি ব্রিজ সংস্কারে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রাক্কলনে রাস্তার চেইনেজ অনুসারে ০-২০০ মিটারের বাইনবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় একটি, ১০০০ মিটারের উত্তর ডালাচরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি, ২০০০ মিটারের বারেক হাওলাদার বাড়ি সংলগ্ন একটি, ৩০০০ মিটারের হারুন মোল্লার বাড়ি সংলগ্ন একটি, ৪০০০ মিটারের মজিদ হাওলাদার বাড়ি এলাকায় একটি এবং ৭০০০ মিটারের শরীফ বাড়ি সংলগ্ন একটি ব্রিজ দেখানো হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে প্রাক্কলনের চেইনেজের সঙ্গে এর কোনো মিল নেই। প্রাক্কলনে বাইনবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শরীফ বাড়ি পর্যন্ত সাত কিলোমিটার দূরত্ব দেখানো হলেও বাস্তবে এর দূরত্ব হচ্ছে দুই কিলোমিটারেরও কম।

তিনি আরও বলেন, বারেক হাওলাদার ও শরীফ বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় কোনো ব্রিজ নেই। সেখানে বাঁশের সাঁকো রয়েছে। আর উত্তর ডালাচরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় ব্রিজ বা সাঁকো কোনোটির অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। এছাড়াও বাকি দুটি ব্রিজ যানবাহন চলাচলের উপযোগী। শুধু রেলিংয়ের সামান্য সংস্কারই যথেষ্ট। অথচ সংস্কারের নামে বিপুল অর্থ বরাদ্দ দেখানো হয়েছে।

আহ্বান করা দরপত্রের ৩৩টি ব্রিজের মধ্যে যেসব স্থানে ব্রিজ আছে তা সংস্কারের ক্ষেত্রে অধিকাংশ ব্রিজেরই দৈর্ঘ্য বেশি দেখানো হয়েছে। এছাড়াও সংযোগ সড়কে প্রয়োজনের অতিরিক্ত মাটির কাজ এবং রেল পোস্টসহ নানা খাত দেখিয়ে প্রয়োজনের তুলনায় প্রায় দ্বিগুন অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

হলদিয়া ইউনিয়নের তুজির বাজার সংলগ্ন ৮৫ মিটার দৈর্ঘ্য যে ব্রিজটি সংস্কারের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে, সেখানে থাকা বাঁশের সাঁকোটির দৈর্ঘ্য হচ্ছে ৬০ মিটার। ব্রিজ না থাকার পরও এখানে ২৫ মিটার দৈর্ঘ্য বেশি দেখানো হয়েছে। এছাড়াও এখানে মাটির কাজের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় নয় লাখ টাকা। একই ইউনিয়নের রামজী বাজার সংলগ্ন ব্রিজেরও একই অবস্থা। সেখানেও ব্রিজ নেই। আছে ৫১ মিটার দৈর্ঘ্যের একটি বাঁশের সাঁকো। অথচ এখানেও এই ব্রিজের দৈর্ঘ্য ১৯ মিটার বেশি দেখানো হয়েছে। একই অর্থ বছরে এলজিইডির একই প্রকল্পের আওতায় বরগুনার বেতাগী উপজেলার তিনটি ব্রিজে যে ব্যয় ধরা হয়েছে সেই তুলনায় আমতলীর ২৬টি ব্রিজের প্রতিটিতে তূলনামূলক দ্বিগুন ব্যয় ধরা হয়েছে।

Facebook Comments

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।