dannews24.com | logo

১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

মহাপরিচালকের নির্দেশনার পরও সাংবাদিকদের ঢুকতে দেয়া হয়  না রাজশাহী হাসপাতালে

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০, ১৩:১২

মহাপরিচালকের নির্দেশনার পরও সাংবাদিকদের ঢুকতে দেয়া হয়  না রাজশাহী হাসপাতালে

রাজশাহী অফিস : স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নির্দেশনার পরও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করেনি কর্তৃপক্ষ। এতে ক্ষুব্ধ গণমাধ্যমকর্মীরা। গত ৬ বছর ধরে সাংবাদিকদের হাসপাতালে প্রবেশ করতে দেয়া হয় না বলে জানান সাংবাদিক নেতারা।

বছর ছয়েক আগে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর খবর সংগ্রহ করতে গেলে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায়। এতে বেশ কয়েকজন সাংবাদিক আহত হয়। এরপর থেকে হাসপাতালে সাংবাদিকদের প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে কর্তৃপক্ষ।সম্প্রতি হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সাংবাদিকদের উপর এমন নিষেধাজ্ঞার খবর শুনে দুঃখ প্রকাশ করে বিষয়টি দ্রুত মিটিয়ে ফেলতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। তবে এখনও কাজের কাজ হয়নি কিছুই। সাংবাদিক নেতারা বলেন, বর্তমানে অনিয়মের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে হাসপাতালটি।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন সহ-সভাপতি মামুন আর রশিদ বলেন, গণমাধ্যমে যেন দুর্নীতির খবর জানাতে না পারে এই জন্য সাংবাদিকদের নিষেধাজ্ঞা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নির্দেশনার পরও হাসপাতালে সাংবাদিকের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত না হওয়ায় গেটে আটকে দেয়া হয় প্রতিবেদককে। পরে অবশ্য মুঠোফোনে সমস্যার সমাধান হয়নি বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল উপ-পরিচালক ডা সাইফুল ফেরদৌস বলেন, ওটা এখনও সমাধান হয়নি। সে ব্যাপারে কিছু বলার নেই।

২০১৪ সালের ২০ এপ্রিল সাংবাদিক ও চিকিৎসকদের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সবশেষ গত বুধবার মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক আলীকে মারধর করে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। সে খবর সংগ্রহ করতে গেলে কর্তৃপক্ষের বাধার মুখে হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারেনি সাংবাদকর্মীরা।

Facebook Comments

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।