dannews24.com | logo

১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৭শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শেরপুরে সাংবাদিক দীপঙ্কর চক্রবর্তীর হত্যাকান্ডের ১৬বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে স্মরণসভা

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৩, ২০২০, ১২:৩২

শেরপুরে সাংবাদিক দীপঙ্কর চক্রবর্তীর হত্যাকান্ডের ১৬বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে স্মরণসভা

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শেরপুরে সাংবাদিক দীপঙ্কর চক্রবর্তীর হত্যাকান্ডের১৬বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে স্মরণসভা করা হয়েছে। গত শুক্রবার (০২অক্টোবর) সন্ধ্যায় শহরের স্থানীয় বাসষ্ট্যান্ডস্থ শেরপুর প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এই সভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি মো. আব্দুল মান্নান। প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসাইনের সঞ্চালনায় স্মরণ সভায় স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন- সাপ্তাহিক আজকের শেরপুর পত্রিকার সম্পাদক আলহাজ¦ মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু, সাপ্তাহিক তথ্যমালার সম্পাদক সুজিত বসাক, সাংবাদিক সবুজ চৌধুরী, আইয়ুব আলী, সাংবাদিক দীপঙ্কর চক্রবর্তীর ছোট ছেলে অনিরুদ্ধ চক্রবর্তী, আব্দুল হামিদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এর আগে কালো ব্যাচ ধারণ করেন সাংবাদিকরা। এছাড়া স্মরণসভার শুরুতেই প্রয়াত এই প্রবীণ সাংবাদিকের আত্মার শান্তি কামনা করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। প্রসঙ্গত: ২০০৪ সালের ২ অক্টোবর বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ও বগুড়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দুর্জয় বাংলার তৎকালীন নির্বাহী সম্পাদক দীপঙ্কর চক্রবর্তী বগুড়ার কর্মস্থল থেকে রাতে বাড়ি ফেরার পথে শেরপুর শহরের স্যানালপাড়াস্থ নিজ বাড়ির কাছে দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হন। এরপর দীর্ঘ ১৪ বছর মামলাটি চলার পর ডিবি পুলিশ রাজধানীর হলি আর্টিজান বেকারি হামলার অন্যতম আসামি রাজীব গান্ধীকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এদিকে উক্ত স্মরণসভায় বক্তারা দীপঙ্কর চক্রবর্তীর হত্যার দায় স্বীকার করা জঙ্গি সংগঠন জেএমবির রাজীব গান্ধীর শাস্তি দ্রুত কার্যকর করার দাবি জানান। তবে নিহত সাংবাদিকের ছেলে অনিরুদ্ধ চক্রবর্তী বলেন, রাজধানীর হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার অন্যতম এই আসামিকে বগুড়ায় গ্রেফতার দেখানের পরই তিনি আদালতে হত্যায় দায় স্বীকার করেন। কিন্তু যেদিন হত্যাকা-টি ঘটে সেই রাতের স্থানীয়দের দেয়া তথ্যের সঙ্গে রাজীব গান্ধীর তথ্যের বহু গড়মিল লক্ষ্য করা গেছে। তিনি স্থানীয়দের বরাত দিয়ে বলেন, ঘটনার রাতে বাড়ির সামনে মোড়ের ওপর দুটি মোটরসাইকেল প্রচ– এক্সেলেটর শব্দ শুনেছেন এলাকাবাসীরা। দুটি মোটরসাইকেল প্রচ–গতিতে শেরপুর শহরের কর্মকার পাড়া পার হওয়ার পথে স্প্রিড ব্রেকারের উল্টে পড়ে যায়। যা অনেকেই সেই রাতে দেখেছেন। কিন্তু রাজীব গান্ধীর স্বীকারোক্তিতে এই বিষয়গুলো নেই। তিনি বলেছেন, খুন করার পর শেরপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে বাসে করে বগুড়া শহরে চলে গেছেন। কিন্তু রাত দেড়টায় শেরপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে কোনো বাস চলে না। আর কেন দীপঙ্কর চক্রবর্তীকে হত্যা করা হলো সে বিষয়ে সুস্পষ্ট কোনো ব্যাখ্যা জবানবন্দিতে নেই। নেই কোনো দালিলিক প্রমাণ।

অপরদিকে হত্যায় জব্দ করা আলমত গায়েবের বিষয়ে অনিরুদ্ধ চক্রবর্তী বলেন, শেরপুর থানা থেকে আলামত গায়েব হয়ে যাওয়ার বিষয়ে স্থানীয় ও জাতীয় একাধিক সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হলে আদালত আলামত প্রদর্শনের নির্দেশ দেন। কিন্তু আলমত প্রদশর্নে পুরোপুরি ব্যর্থ হয় তদন্তকারী পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থা। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, যদি জঙ্গিরা হত্যা করে থাকে তবে থানা থেকে আলামত গায়েব করলো কে?।

Facebook Comments

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।