dannews24.com | logo

১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বগুড়ার শেরপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী গৃহবধূকে গণধর্ষণ, দুই ধর্ষক ও এক গ্রাম্য মাতব্বর গ্রেফতার

প্রকাশিত : অক্টোবর ২৮, ২০২০, ২১:২৪

বগুড়ার শেরপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী গৃহবধূকে গণধর্ষণ, দুই ধর্ষক ও এক গ্রাম্য মাতব্বর গ্রেফতার

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। দিনে-দুপুরে বসতবাড়ির সামনে থেকে ওই নারীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায় দুই লম্পট যুবক। এরপর গামছা দিয়ে তাঁর মুখ বেধে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। আর এই গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বিশালপুর ইউনিয়নের জামাইল স্কুলপাড়া গ্রামে। এদিকে গণধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে মরিয়া হয়ে মাঠে নামেন গ্রাম্য মাতব্বররা। এরই ধারাবাহিকতায় গ্রাম্য সালিশ বসিয়ে বিশ হাজার টাকা জরিমানা আদায়ের মাধ্যমে আপোষ-রফা করে নেয়ার রায় ঘোষণা করেন তারা। কিন্তু মাতব্বরদের এই সালিশ মানতে রাজী না হওয়ায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ ও তার পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করার হুমকি-ধামকি দেন তারা।

পরে ঘটনাটি জানতে পেরে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের ধরতে অভিযান চালায় পুলিশ। গত মঙ্গলবার (২৭অক্টোবর) দিনগত রাতে জামাইল বাজার এলাকায় এই অভিযান পরিচালিত হয়। একপর্যায়ে দুই ধর্ষক ও এক গ্রাম্য মাতব্বরকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। তারা হলেন-উপজেলার বিশালপুর ইউনিয়নের জামাইল স্কুলপাড়া গ্রামের মো. হাসান আলীর ছেলে ধর্ষক মো. রবিউল ইসলাম রুবেল (১৯), পাশের জামাইল হাটখোলা গ্রামের মৃত বাচ্চু ফকিরের ছেলে মো. আব্দুল জলিল (৩২) ও গ্রাম্য মাতব্বর জামাইল মজলিশী পাড়া গ্রামের খোকা মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম (৫৫)। এ ঘটনায় গতকাল বুধবার (২৮অক্টোবর) সকালে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ বাদি হয়ে থানায় একটি গণধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৬অক্টোবর বেলা ১১টার দিকে জামাইল মজলিশিপাড়া গ্রামের মাসুদ রানার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্ত্রী বসতবাড়ির সামনে বসে কাজ করছিলেন। এসময় লম্পট রবিউল ইসলাম রুবেল ও আব্দুল জলিল তাঁকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এরপর রুবেলের বাড়ীর উত্তর দুয়ারী শয়নকক্ষে নিয়ে এই গৃহবধূর মুখ গামছা দিয়ে মুখ বেধে তাঁকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। পরবর্তীতে ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে গ্রাম্য মাতব্বর খোদা বক্স, ফরিদ উদ্দীন, সাইফুল ইসলামসহ বেশকয়েকজন ব্যক্তি গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে আপোষ-রফা করে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে গণধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী গৃহবধূ ও তার পরিবার ঘটনাটি পুলিশকে জানালে তাৎক্ষণিক নির্যাতিতা গৃহবধূকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেইসঙ্গে ধর্ষক ও গ্রাম্য মাতব্বরকে গ্রেফতার করা হয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি দুই ধর্ষক ও এক গ্রাম্য মাতব্বরকে গ্রেফতার করে বুধবার দুপুরের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া মামলায় অভিযুক্ত অন্যদের ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

অফিস: হোল্ডিং#৩৫৯,রোড# ৮/২ মধ‍্য সরদারপাড়া, দুপচাঁচিয়া, বগুড়া।




সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: মোছাব্বর হাসান মুসা।

নির্বাহী সম্পাদক
ইমরানুল হাসান (বি এ অনার্স) ম‍্যানেজমেন্ট।

 

বার্তা সম্পাদক: মো:জাকারিয়া হাসান।

মহিলা সম্পাদিকা: মোনিকা আক্তার মালা।